????????

নববী এক মোজেজা



রোমান সম্রাট হিরাক্লিয়াস, আবিসিনিয়ার সম্রাট নাজ্জাসীর কাছে ইসলামের দাওয়াত পৌঁছানোর পর পারস্যের সম্রাট খসরু পারভেজের দরবারে চিঠি দিয়ে দূত প্রেরণ করলেন মহানবী (সা)।

মহানবীর চিঠি কোন সম্রাটের দরবারে যে অমর্যাদার শিকার হয়নি, সেটাই ঘটল পারস্যে।

সম্রাট খসরু চিঠি পেয়ে ক্রোদে জ্বলে উঠলেন এবং চিঠি ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে ফেললেন।

শুধু তাই নয়, ইয়ামেনে তাঁর শাসনকর্তাকে লিখে পাঠালেন,চিঠি পাওয়া মাত্র মদীনায় গিয়ে মুহাম্মাদকে গ্রেফতার করে পারস্য সম্রাটের দরবারে পাঠানো হোক।

চিঠি পেয়ে ইয়ামেনের শাসনকর্তা ‘বাজান’ প্রেফতারী পরওয়ানা ও উপযুক্ত সৈন্যসহ দু’জন রাজ-কর্মচারীকে মদীনা পাঠালেন।

রাজকর্মচারীদ্বয় যথাসময়ে মদীনায় মহানবীকে বললেন, স্বেচ্ছায় ত্বরিত হাজির হলে গভর্নর সাহেব তার পক্ষে ভাল সুপরিশ করতে পারেন।

মহানবী (সা) তাদের সাথে কিছু কথাবার্তা বলে তাদেরকে পরদিন সকালে আসতে বললেন।

পরদিন সকালে ওঁরা এলেন। মহানবী ওদের বললেন, ‘খসরু পারভেজ নিহত। তাঁর ছেলে শেরওয়াহ তাকে হত্যা করে সিংহাসন দখল করেছে।

যাও, তোমরা ফিরে গিয়ে ‘বাজান’-কে এই সংবাদ দাও।

নিশ্চয় জেন, ইসলাম শীঘ্রই খসরু পারভেজের সিংহাসনের উপর অধিকার বিস্তার করবে।

আর ‘বাজান’-কে বলো, সে ইসলাম গ্রহণ করলে তাকে তার পদে বহাল রাখব। রাজকর্মচারীদ্বেয় এই অবিশ্বাস্য সংবাদ শুনে স্তম্ভিত ও কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে ছুটল ইয়ামেনে তাদের শাসনকর্তা ‘বাজার’-এর কাছে।

ইয়ামেনের শাসনকর্তা ‘বাজান’ তাঁর কর্মচারীর কাছে সবশুনে উদ্বেগ ও বিস্ময় ভরা কণ্ঠে বলল, এমন স্পষ্ট অনাবিল ভবিষ্যদ্বাণী তো বাইবেলে কোথাও খুঁজে পাওয়া যায় না। এ ভবিষ্যদ্বাণী যদি সত্য হয়, তাহলে নিঃসন্দেহে বুবং যে, মুহাম্মদ যথার্থই আল্লাহর নবী।

ঠিক আছে কয়দিন অপেক্ষা করা যাক, পারস্য থেকে কোন খবর আসে কিনা। খুব শীঘ্রই ‘বাজান’-এর উন্মুখ অপেক্ষার অবসান ঘটল।

‘বাজান‘-এর কাছে পারস্যের নতুন সম্রাট শেরওয়াহের ফরমান এল।

যাতে বলা হলো- ‘খসরুকে তার অন্যায় আচরণের জন্যে হত্যা করে আমি সিংহাসনে অধিপতি হয়েছি।

ইয়ামেনবাসীকে আমার আনুগত্য স্বীকারে বাধ্য করবে। আর মক্কার সেই ব্যক্তি সম্পর্কে আমার দ্বিতীয় আদেশ না পাওয়া পর্যন্ত কিছু করবে না।’

ফরমান পড়ার পর আর কালবিলম্ব না করে ইয়ামেনের শাসনকর্তা ‘বাজান’ ইসলাম গ্রহণ করলেন এবং অল্পকাল পরেই ছুটলেন মদীনায় মহানবীর মহাদর্শন লাভের আকূল বাসনায়। কিন্তু তাঁর বাসনা অতৃপ্তই রয়ে গেল। পথিমধ্যে তিনি শহীদ হলেন গুপ্ত ঘাতকের হাতে।